Wednesday , 2 December 2020
সংবাদ শিরোনাম
সেনবাগে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুকে ধর্ষণ ও ভিডিও চিত্র ধারনের অভিযোগে ৩জন গ্রেফতার

সেনবাগে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুকে ধর্ষণ ও ভিডিও চিত্র ধারনের অভিযোগে ৩জন গ্রেফতার

October 21, 2020 তে 10:43 pm
সেনবাগ প্রতিনিধিঃ
নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধুকে (২০) ধর্ষণ করে ভিডিও চিত্র ধারনের অভিযোগে তিন সহযোগী কিশোর গ্যাং সদস্যকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।
গৃহবধুকে ধর্ষণ ঘটনার ১১দিন পর মঙ্গলবার রাতে মামলা দেয়ার পর বুধবার ভোরে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।
ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে ৯ অক্টোবর রাতে উপজেলার ছাতারপাইয়া ইউনিয়ন এলাকায়। ধর্ষণের ঘটনার পরদিন রাতে ধর্ষক পারভেজের ভাই শিমুলের মাইক্রো বাস চালক ওই ধর্ষিতার স্বামী বাড়ীতে এসে এ ঘটনা জানার পর ধর্ষিতা ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা তার স্ত্রীকে পরদিন সকালে বাড়ী থেকে তাড়িয়ে দেয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলো, ছাতার পাইয়া গ্রামের আবদুল কাইয়ুমের ছেলে শুভ (১৮), একই গ্রামের আবদুল হকের ছেলে রকি (১৭) ও হাছান (১৮)। তবে পুলিশ ছাতারপাইয়া গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে ধর্ষক পারভেজকে (২৫) এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ছাতারপাইয়া পূর্ব পাড়া গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে শিমুলের মাইক্রোবাস ভাড়ায় চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন ধর্ষিতা ওই গৃহবধু’র স্বামী। গত ৯ অক্টোবর গৃহবধুর স্বামী জীবিকার সন্ধানে মাইক্সোবাস নিয়ে ভাড়ায় যান চট্টগ্রামে। ওইদিন সন্ধ্যায় মাইক্রোবাসের মালিক শিমুলের ছোট ভাই অভিযুক্ত ধর্ষক পারভেজ তার ১০-১২জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের নিয়ে ওই অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুর বসত ঘরে প্রবেশ করে। এসময় ওই অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুকে একা পেয়ে পারভেজ ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় পারভেজের সহযোগি কিশোর গ্যাং সদস্য শুভ, রকি, হাসানসহ অন্যান্যরা জানালা দিয়ে ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও চিত্র ধারণ করে। পারভেজ ধর্ষণ করে চলে যাওয়ার পর শুভ, রকি ও হাসানসহ ৮-১০ পূনঃরায় ওই  গৃহবধুর ঘরে ঢুকে ধারণ করা ধর্ষণের ভিডিও চিত্র দেখিয়ে তাকে আবারও ধর্ষণের চেষ্টা করে। এতে রাজি না হলে ওই ধর্ষিতার কাছে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। ধর্ষিতা নারী তাদের সাথে অনৈতিক কাজ করতে অপরাগতা  প্রকাশ এবং ৩০ হাজার টাকা দিতে অসম্মতি প্রকাশ করে। এতে ক্ষিপ্ত  হয়ে শুভ, হাসান ও রকি ধর্ষণের ভিডিও চিত্রটি ধর্ষিতা গৃহবধুর স্বামীর ব্যবহৃত মুঠোফোনে পাঠিয়ে দেয়। ওই দিন রাতে গৃহবধুর মাইক্রো চালক স্বামী বাড়ীতে এসে পরদিন সকালে তার ধর্ষিতা ও অন্তঃসত্ত্বা  স্ত্রীকে তার বাড়ী থেকে তাড়িয়ে দেয়।

ধর্ষিতার বড় বোনের স্বামী জানান, ধর্ষণ ঘটনার ভিডিও চিত্র তার স্বামী দেখার পর ১০ অক্টোবর শনিবার সকালে তার বাড়ী থেকে ধর্ষিতা অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বাড়ী থেকে বের করে দেন। এরপর বিষয়টি নিয়ে ধর্ষিতার আত্মীয় স্বজন ও ধর্ষকের স্বজনদের মধ্যে মিমাংসার কথা বলে পুলিশকে অভিযোগ করতে বাধা দেয় ধর্ষক পারভেজের পরিবারের লোকজন। পরে মঙ্গলবার রাতে ধর্ষিতা  নারী সেনবাগ থানায় গিয়ে ধর্ষক পারভেজকে প্রধান আসামী করে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১০-১২জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

ছাতারপাইয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান জানান, মঙ্গলবার বিকেলে ধর্ষণের স্বীকার অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু ও তার ভগ্নিপতি তার কাছে বিষয়টি জানালে তিনি তাদেরকে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দিয়েছেন।

এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সেনবাগ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক মোঃ তারেকুর রহমান  বলেন, এ ঘটনায় ধর্ষক  একজন, তার সহযোগি অন্যান্যরা ধর্ষণের ঘটনা ভিডিও চিত্র ধারণ করেছিল। এদের মধ্যে ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধর্ষক পারভেজসহ ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন মৃধা ধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত  করে বলেন, পুলিশ মামলার প্রধান আসামী ধর্ষক পারভেজসহ এ ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান শুরু হয়েছে। ঘটনার পর থেকে ধর্ষিতা ওই গৃহবধুর স্বামীকে খুজে পাওয়া যাচ্ছে না।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top